ড্রেসিংরুমে ভয়াবহ দুর্ঘটনার শিকার তামিম

ড্রেসিংরুমে ভয়াবহ দুর্ঘটনার শিকার তামিম

আসন্ন অস্ট্রেলিয়া সিরিজকে সামনে রেখে কঠোর অনুশীলনে ব্যস্ত বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা। গত ১০ জুলাই মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে টাইগারদের অনুশীলন ক্যাম্প শুরু হওয়ার পর, অনুশীলনের চট্টগ্রাম পর্ব শেষ করে গতকাল আবারও ঢাকায় ফিরেছেন তামিম-মুশফিকরা।

চট্টগ্রামে নিজেদের মধ্যে একটি তিন দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছেন বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা। গত বুধবার এই ম্যাচের প্রথম দিনেই ড্রেসিং রুমের দরজায় মারাত্মক দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন টাইগার ওপেনার তামিম ইকবাল।

প্রস্তুতি ম্যাচে দুর্দান্ত শুরু করলেও ২৯ রান করে রানআউট হয়ে সাজঘরে ফিরছিলেন তিনি। রান আউট হওয়ার হতাশা থেকেই ড্রেসিংরুমের সামনের বারান্দায় ওঠার সময় তামিম ইকবাল ব্যাট দিয়ে বাড়ি দিলেন দরজার কাচে। কাচটা সামান্য ভাঙল।

তারপর ড্রেসিংরুমে ঢোকার সময় যেটা ঘটল, তাতে অনেক বড় দুর্ঘটনায় পড়তে পারতেন টাইগার ওপেনার। তবুও অনেক বড় একটা ঝড় বয়ে গেছে তামিমের উপর দিয়ে। কাল চট্টগ্রাম থেকে দলের সঙ্গে তিনি ঢাকায় ফিরেছেন পেটে চারটি সেলাই নিয়ে।

ঘটনাটা চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে হওয়া তিন দিনের প্রস্তুতি ম্যাচের প্রথম দিনের (গত বুধবার)। মাঠ থেকে এসে ড্রেসিংরুম ঢোকার জন্য কাচের দরজায় হাত দিয়ে ধাক্কা দিতেই সেটি ঝনঝন করে ভেঙে পড়ে তামিমের উপর।

ভারসাম্য ধরে রাখতে না পেরে তামিমও পড়ে যান সেই কাচের উপর। মাথায় হেলমেট আর পায়ে প্যাড থাকায় বড় দুর্ঘটনার হাত থেকে বাঁচলেও ভাঙা কাচের টুকরো পেটে ঢুকে গিয়ে অনেক রক্তপাত হয়েছে তামিমের। যার জন্য চারটি সেলাইও নিতে হয়েছে তাকে।

সম্প্রতি ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে তামিম জানিয়েছেন, ‘দরজাটা ধাক্কা দেওয়ামাত্র কাচ ভেঙে আমার গায়ের ওপর পড়ল। আমিও মাটিতে পড়ে গেলাম। আমার প্যাডগুলো দেখলে বুঝতে পারতেন কত ভয়ংকর ছিল সেটা। প্যাড না থাকলে এর চেয়েও খারাপ কিছুও হতে পারত।’

দুর্ঘটনার পর দুদিন মাঠেই পা রাখতে পারেন নি তামিম। আজ-কালের মধ্যে সেলাই কাটা হলেও অবস্থা পর্যবেক্ষণ করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন চিকিৎসকরা। অন্ততপক্ষে পাঁচদিন তামিমকে সম্পূর্ণ বিশ্রামে থাকতে বলা হয়েছে। তাই দু’য়েক দিনের মধ্যেই অনুশীলনে ফিরতে আশাবাদী তামিম।

Posts Carousel

এই মাত্র

সর্বাধিক মন্তব্য

ভিডিও