অস্ট্রেলিয়া সিরিজে পেসাররাও সুবিধা পাবে বলে আশাবাদী শফিউল

অস্ট্রেলিয়া সিরিজে পেসাররাও সুবিধা পাবে বলে আশাবাদী শফিউল

প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার জন্য প্রতিবারই স্পিন সহায়ক উইকেট প্রস্তুত করে থাকে বাংলাদেশ। আসন্ন অস্ট্রেলিয়া সিরিজেও সেই পরিকল্পনা নিয়েই মাঠে নামতে যাচ্ছে তারা বলে জানা গেছে। সুতরাং ঢাকা এবং চট্টগ্রাম টেস্টে যে স্পিনারদেরই জয়জয়কার থাকবে তা বলাই বাহুল্য। 

 

গত বছরও টাইগার স্পিনারদের তান্ডবেই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ঢাকা টেস্টে জয়ের দেখা পেয়েছিলো বাংলাদেশ। অবশ্য স্টিভেন স্মিথের দলের বিপক্ষে এবার শুধু স্পিনাররাই নন, সমান তালে জ্বলে উঠতে পারেন পেসাররাও। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের পেস তারকা শফিউল ইসলাম মনে করছেন এমনটাই।

রবিবার সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে শফিউল জানান ঠিক মতো স্কিল কাজে লাগাতে পারলে পেসাররাও সাফল্য পাবে এই সিরিজে। টাইগার এই পেসারের ভাষ্যমতে,

‘আমাদের দেশে হয়তো স্পিন সহায়ক উইকেট হয়। অন্যান্য দেশে পেস বোলাররাও অনেক ব্রেক থ্রু এনে দেয়। আমার মনে হয় আমাদেরও ওই জায়গাটায় উন্নতি করার সুযোগ আছে। আমাদের দ্রুত গতির বোলার আছে। আমাদের স্কিলও মোটামুটি ভালো। আমরা যদি ম্যাচে ভালো জায়গায় বল করতে পারি অবশ্যই ভালো কিছু হবে।’

পেস বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশ দলের আটজন পেসারকে আলাদা করে একটি কোচিং সেশন করিয়েছেন। যেখানে ছিলেন শফিউল ইসলামও। সেই বোলিং সেশন নিয়ে শফিউল বলেন,

‘আমরা যে শেষ অনুশীলন ম্যাচটি খেলেছি, আমার মনে হয় বোলারদের একটা টেস্ট ম্যাচে যেভাবে বল করা উচিত ওইভাবে বল করতে পারেনি। আমার মনে হয় সেজন্যই এই লম্বা সেশনটি কোচ আমাদের নিয়ে করেছেন। তাছাড়া গতকাল বিশ্রাম থাকায় আমাদের পেস বোলারদের যতটুকু বল করার কথা ছিল ততটুকু করতে পারিনি বলেই মনে হয় আজকে এই পরিকল্পনা হয়েছে।’

টাইগার এই পেসার কথা বলেছেন অস্ট্রেলিয়া সিরিজ নিয়েও। তাঁর মতে অজিদের বিপক্ষে সামর্থ্য অনুযায়ী খেলতে পারলে পেসারদেরও ভালো করার সুযোগ আছে। শফিউল বলছিলেন, ‘যারাই সুযোগ পাবে যদি প্রত্যাশা অনুযায়ী খেলতে পারে তাহলে অবশ্যই ভালো কিছু করা সম্ভব।’

চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত প্রস্তুতি ম্যাচে পাঁচ উইকেট শিকার করে নিজেকে আবারো প্রমাণ করেছেন ২৭ বছর বয়সী শফিউল। সুতরাং তাঁর দিকে যে নির্বাচকদের আলাদা নজর থাকছে তা সহজেই অনুমেয়। তবে এসব নিয়ে কিছু ভাবছেন না এই টাইগার পেসার। বরং নিজের কাজটাই করে যেতে চান তিনি। জানালেন,

‘আমি আমার কাজ করে যাচ্ছি। ম্যাচ খেলেছি, নেটে যে কাজ সেটা করে যাচ্ছি। দলে যায়গা পাওয়া না পাওয়া পুরোটাই ম্যানেজমেন্টের ব্যাপার। তারা যাকে নির্বাচন করবে সেই খেলবে। তবে আমি যদি সুযোগ পাই চেষ্টা করবো সেরাটা দিতে।’

 

Posts Carousel

এই মাত্র

সর্বাধিক মন্তব্য

ভিডিও